Categories
News

দুই বৌদির গোসলের ভিডিও করল দেবর গোপনে!(দেখুন ভিডিও)

‘ছেলে-মেয়ে আর বুলবুলকে নিয়ে খুব ভালো ছিলাম আমি। বুলবুল খুব ঠান্ডা প্রকৃতির মানুষ ছিল। বুলবুল তো ফ্রিতেই অনেক মানুষকে চিকিৎসা দিত। ওরা বুলবুলকে মারল কেন! ওরা আমার সন্তানদের বাবাহারা করল কেন! ওরা সারা দিন বাবার অপেক্ষায় থাকে। এখন কী বুঝ দিব আমি সন্তানদের!’ অশ্রুরুদ্ধ কণ্ঠে কথা বলছিলেন ডা. বুলবুলের স্ত্রী শাম্মী।

কিছুক্ষণ পরপর ডা. বুলবুল ফোন করে ছেলে-মেয়ের সঙ্গে কথা বলতেন। ভিডিও কলে বাবাকে দেখত ছোট্ট সামী। আর তাতে অভ্যস্ত হয়ে গেছে সে। এখন ফোনে রিং হলেই বাবা বাবা বলে ডেকে ফোন ধরে। কানে ফোন ধরে, কিন্তু সামীর কানে আর বাবার কথা বাজে না। একটু পরে ফোন ফেলে দিয়ে কান্না করে। দেড় বছর বয়সী সামীকে কী বুঝ দেবেন ভাষা নেই মা শাম্মীর ।

মেয়ে আয়ন আনমনা হয়ে বসে থাকে সারা দিন। কারোর সাথে কোনো কথা বলে না, খাওয়া-দাওয়াও করছে না। মেয়ে চোখের পানিতে বাবার ছবি এঁকে যাচ্ছে। কিছুক্ষণ পরপর কাঁদছে আর বাবার ছবি আঁকছে। এটাই তার বাবা! ছয় বছরের মেয়ের কাছে ড্রইংয়ের এই ছবিতেই বেঁচে আছেন ডা. বুলবুল।

বর্তমানে এই হলো ডা. বুলবুলের পরিবারের চিত্র। চিকিৎসক বুলবুল আহমেদ সব ব্যস্ততার মধ্যেও সন্তানদের ভুলতেন না। চেম্বার থেকে একটু পরপর স্ত্রী শাম্মীকে ফোন করে খোঁজ নিতেন বাচ্চাদের। কথা বলতেন তাদের সঙ্গে। আজ তিনি তাদের কাছ থেকে চিরকালের জন্য হারিয়ে গেছেন।

ডাক্তার বুলবুলের মেয়ে আয়নের আকা একটি ছবিতে দেখা যাচ্ছে বাবা-মা আর তারা দুই ভাই-বোন হাত ধরে দাঁড়িয়ে আছে। বাবার হাত ধরে আছে আয়ন। আর ছবির ওপরে লেখা- ‘প্রিয় বাবা, তুমি কোথায়?’ ‘আব্বু, তোমাকে ভালোবাসি, আব্বু তোমাকে মিস করি!’

শাম্মী বলেন, ‘বাচ্চাদের লেখাপড়া শেখানো ও ভালো মানুষ করে গড়ে তুলতে এক বুক স্বপ্ন নিয়ে ঢাকায় এসেছিলাম। কিন্তু আজ খালি হাতে গ্রামে চলে আসতে হলো।’

মগবাজারের একটি বেসরকারি মেডিকেল কলেজে দন্ত চিকিৎসা বিষয়ে পড়াশোনা শেষে মগবাজার এলাকাতেই রংপুর ডেন্টাল নামে একটি চেম্বার খুলে মানুষকে চিকিৎসাসেবা দিচ্ছিলেন ডা. বুলবুল। দরিদ্র ও নিম্নবিত্ত রোগীদের বিনামূল্যে চিকিৎসা দিতেন বলে ‘গরীবের ডাক্তার’হিসেবে তার পরিচিতি তৈরি হয়।

রংপুর শহরের কোতোয়ালি ভগিবালাপাড়া গ্রামের আব্দুস সামাদ ও বুলবুলি সামাদ দম্পতির দুই ছেলে ও এক মেয়ের মধ্যে সবার বড় ছিলেন বুলবুল। ২০০৮ সালে দিনাজপুরের মেয়ে শাম্মীকে বিয়ে করেন তিনি। তাদের কোল জুড়ে আসে মেয়ে আয়ন ও ছেলে সামী। পরিবার নিয়ে পশ্চিম শেওড়াপাড়া আনন্দবাজার এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় থাকতেন ডা. বুলবুল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.